তরুণদের অগ্রাধিকার প্রস্তাবিত বাজেটে

সে লক্ষ্যেই কারিগরি শিক্ষায় বিশেষ গুরুত্ব, প্রশিক্ষণ ও কর্মসংস্থানে আলাদা বরাদ্দ, তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য স্টার্টআপ তহবিল ঘোষণা এবং ক্রীড়া ও সংস্কৃতিতে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে ফুটবলের জন্য বরাদ্দ রাখাসহ নানা প্রতিশ্রুতি রয়েছে বাজেটে। বৃহস্পতিবার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জাতীয় সংসদে বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করেন।

এ প্রসঙ্গে সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম যুগান্তরকে বলেন, তরুণদের জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টি, স্ব-কর্মে নিয়োজিত করা এবং শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের দক্ষ মানব সম্পদ হিসেবে গড়ে তোলার উৎকৃষ্ট সময় এখন। আর এ কারণেই প্রস্তাবিত বাজেটে বেশ কিছু উদ্যোগ নেয়া হয়েছে- যা নতুন সংযোজন। তরুণ প্রজন্মকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া ভবিষ্যৎ বাংলাদেশ বির্নিমাণের অন্যতম একটি পদক্ষেপ। এখন এসব উদ্যোগ সঠিকভাবে বাস্তবায়নের মাধ্যমে লক্ষ্য অর্জনে এগিয়ে যেতে হবে।

সূত্র জানায়, ইনোভেশন বা নতুন ধারণা ও কর্মের কার্যকর ব্যবহারে প্রযুক্তি, ব্যবসা-বাণিজ্য, ব্যবস্থাপনা ইত্যাদি ক্ষেত্রে বিশ্বব্যাপী পরিবর্তনের ধারাকে কাজে লাগাতে চায় সরকার। এজন্য উদ্ভাবনী সংস্কৃতি গড়ে তুলতে বিশেষ করে যুব সমাজের বুদ্ধিদীপ্ত ও মেধাসম্পন্ন উদ্ভাবনকে কাজে লাগানো এবং এ খাতে বরাদ্দ রাখার প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছে বাজেটে। এছাড়া মানসম্পন্ন কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা সম্প্রসারণের জন্য নানা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষায় বৈষম্য দূর করতে দাখিল, কারিগরি ও এবতেদায়ি স্তরে শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি দেয়া হচ্ছে। গরিব, মেধাবী শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে পাঠ্যবই বিতরণ, ইংরেজি ও গণিত শিক্ষকদের বিশেষ প্রশিক্ষণ, দুস্থ শিক্ষকদের এককালীন অনুদান, ষষ্ঠ শ্রেণী থেকেই তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিকে (আইসিটি) পাঠ্যপুস্তক হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া দক্ষ জনবল তৈরির জন্য ২ হাজার ২৮১ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রতিটি উপজেলায় একটি করে টেকনিক্যাল স্কুল স্থাপনের কাজ চলছে। সেই সঙ্গে চারটি বিভাগীয় শহরে মহিলা পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট স্থাপন, ভূমি জরিপ শিক্ষার উন্নয়নে ২৩ জেলায় পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট স্থাপন এবং ৬৪টি টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজের সক্ষমতা বৃদ্ধির কাজ চলছে।