পদত্যাগ করলেন মোদি

সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে বিপুল বিজয়ের পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দ্বিতীয় দফা সরকার গঠনের প্রস্তুতি নিতে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। এছাড়া তিনি বিদায়ী মন্ত্রিসভার সদস্যদের নিয়ে বৈঠকও করেছেন।

শুক্রবার নরেন্দ্র মোদি রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গে দেখা করে তার পদত্যাগপত্র জমা দেন। রাষ্ট্রপতি তার পদত্যাগ গ্রহণ করেন। এসময় রাষ্ট্রপতি নতুন সরকার গঠনের আগ পর্যন্ত তাকে দায়িত্ব পালনের অনুরোধ জানান।

বেশিরভাগ ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, চলতি সপ্তাহের ৩০ মে তিনি দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিতে পারেন। তবে কোনো কোনো সংবাদমাধ্যম বলছে, দুই একদিন আগেও এ শপথ অনুষ্ঠান হতে পারে।

এদিকে বিজেপির বিশাল জয়ের একদিন পর নরেন্দ্র মোদি শুক্রবার সকালে দলের দুই বর্ষীয়ান নেতা লালকৃষ্ণ আদভানি এবং মুরলি মনোহর যোশির সঙ্গে দেখা করে তাদের আশির্বাদ নিয়েছেন।

আদভানির পা ছুঁয়ে মোদি আশীর্বাদ নেন। এ সময় তার সঙ্গে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ ছিলেন। খবর আনন্দবাজার পত্রিকা, পিটিআই ও এনডিটিভির।

লোকসভা নির্বাচনের চূড়ান্ত ফলাফলে বিজেপি ৩০৩টি আসন পেয়েছে। যা এককভাবে সরকার গঠন করার মতো আসন (২৭২) থেকে অনেক বেশি। বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট পেয়েছে ৩৫১টি আসন।

অপরদিকে কংগ্রেস এককভাবে পেয়েছে মাত্র ৫২টি আসন। কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোট পেয়েছে মাত্র ৯২টি আসন।

ভারতের ১৮তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিতে যাচ্ছেন নরেন্দ্র মোদি। শপথ নেয়ার আগে তিনি রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের কাছে নতুন সরকার গঠনের দাবি পেশ করবেন। সবকিছু ঠিক থাকলে বৃহস্পতিবার ৪টা থেকে ৫টার মধ্যে রাষ্ট্রপতি ভবনে তার শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান হতে পারে।

এর আগে ২০১৪ সালের নির্বাচনে জয়লাভের পর দেশের ১৭তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মোদি শপথ নেন। ওই বছরের ২৬ মে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের কাছে প্রথমবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তিনি শপথ নেন।