মাহমুদউল্লাহর চোটে টাইগার শিবিরে দুশ্চিন্তা

সাউদাম্পটনে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৬২ রানে জিতে স্বস্তি ফিরেছে টাইগার শিবিরে। তবে অভিজ্ঞ মিডলঅর্ডার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের চোট কপালে ভাঁজ ফেলছে মাশরাফি-সাকিবদের।সোমবারের রুদ্ধশ্বাস ম্যাচ জিতে জয়ে ফিরে বাংলাদেশ। এই জয়ে অনন্য ভূমিকা রাখেন অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তার স্পিন বিষে নীল হয় আফগানিস্তান। তবে জয়ের জন্য যে পুঁজিটা দরকার ছিল সেটি গড়ে দেন মুশফিক-তামিম-মাহমুদউল্লাহরা। ৩৮ বলে ২৭ রান করেন আগের ম্যাচে ৬৯ রান করা মাহমুদউল্লাহ কাফ ইনজুরিতে পড়েছেন এ টাইগার মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যান। সে কারণেই আফগানিস্তানের বিপক্ষে ফিল্ডিংয়ে নামেননি দলের অপরিহার্য এ সদস্য।

তবে তার চোট কতটা গুরুতর সেটি এখনও জানা যায়নি। চোট আক্রান্ত জায়গা স্ক্যানিংয়ের জন্য তাকে মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে। সেই রিপোর্ট হাতে পেলে তবেই বিস্তারিত জানা যাবে।সাউদাম্পটনের রোজ বোল স্টেডিয়ামের সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সিনিয়র মিডিয়া ম্যানেজার রাবিদ ইমাম। ‘আপনাদের অবগতির জন্য জানাচ্ছি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ কাফ ইনজুরিতে পড়েছেন। ফলে আফগানিস্তানের বিপক্ষে তিনি ফিল্ডিং করতে পারেননি। স্ক্যানিংয়ের জন্য তাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। স্ক্যান রিপোর্ট দেখার পর সোমবার রাতে অথবা আগামীকাল (আজ) সকালে তার চোটের প্রকৃত অবস্থা জানা যাবে।’

মাহমুদউল্লাহ বরাবরই বাংলাদেশ দলের মিডলঅর্ডারের অন্যতম খুঁটি। ইনিংসের শেষের দিকে তার তোলা ঝড়ই প্রতিপক্ষের কাছ থেকে ম্যাচ ছিনিয়ে নেয়। এ ছাড়া দলের দুঃসময়ে তার চওড়া ব্যাট বহু ম্যাচে বাংলাদেশকে লড়াকু পুঁজি এনে দেয়।এবারের আসরের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে মাহমুদউল্লাহ ৩৩ বলে করেছিলেন ৪৬ রান। এর পর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে করেন ৫০ বলে ৬৯ রান। অন্য ম্যাচগুলোতেও রান পেয়েছেন।মাহমুদউল্লাহর এমন চোট কিন্তু বেশ ভাবাচ্ছে ্টাইগারভক্তদের। বাংলাদেশের পরের দুটি ম্যাচ ভারত ও পাকিস্তানের বিপক্ষে। দুটি ম্যাচেই তাকে মাঠে দেখতে মুখিয়ে আছে দেশবাসী।