হৃদয়বানদের প্রতি এক মায়ের আকুতি, ‘আমার আদরকে বাঁচান’

মা আদর করেই তার নাম রেখেছেন আদর-নাসিউর রহমান (আদর)। পিতা মোঃ জয়নাল আবেদিন। মাতার নাম নাসিমা আক্তার। বড় হলে একজন আলেম হবে, মানুষকে দ্বীনের পথে আনবে-এমন ইচ্ছা মায়ের। দিন সেভাবেই চলছিল। এই লক্ষ্যকে সামনে রেখেই ভর্তি করানো হয় আদরকে উত্তর বাসাবোস্থ জামিয়া ছওতুল হেরা মাদ্রাসায়। বর্তমানে মাদ্রাসার কিতাব বিভাগের ছাত্র তিনি। আদর নিলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলার কিসামল কাদিকুল পুরাহাটের বাসিন্দা ।

মা-বাবার আদরে বড় হয়ে উঠা আদর মাদ্রাসাতেও সবার কাছে অল্পতেই প্রিয় হয়ে উঠে। সেখানেও আদর অনেক আদর পেয়ে বড় হয়ে উঠছিল। কিন্তু আদরের জীবনে এখন নেমে এসেছে বিষাদের ছায়া। এখন আদরে জীবন থামিয়ে দিতে চায় দুরারোগ্য ক্যান্সার। মাদ্রাসার বদলে আদর এখন তীব্র জ্বর আর ব্যাথায় কাতরাচ্ছে। ডাক্তার জানিয়েছেন পেটের পেছনে ক্যান্সার আক্রান্ত করেছে তাকে। তবে চিকিৎসকরা বলেছে চিকিৎসা পেলে সে সুস্থ হয়ে উঠার সম্ভানাই বেশি।

কিন্তু এত ব্যয় কি করে বহন করবে আদর? কোথায় পাবে এত টাকা। পিতা একজন ড্রাইভার। মা বিভিন্ন বাসা বাড়িতে কাজ করেন। সবার কাছে এরা সৎ মানুষ হিসাবেই পরিচিতিও পেয়েছে।

মা নাসিমা আক্তার নয়া দিগন্ত প্রতিবেদককে বলেন, জীবনভর সৎ রুজি করে ছেলেকে মাদ্রাসায় ভর্তি করিয়েছি। কিন্তু আমার আদরের প্রদীপ এখন এভাবে নিভে যাবে তা ভাবলে কোন মা-বাবা কি বেঁচে থাকতে পারে? কান্না বিজরিত কণ্ঠে জানালেন, আদরকে বাঁচাতে কষ্ট করে তৈরি গ্রামের বাড়িটাও বিক্রি করতে চান তিনি। কিন্তু সে টাকা দিয়েওতো চিকিৎসা করা সম্ভব না। চিকিৎসকরাও বলেছে প্রচুর অর্থের প্রয়োজন। কে দেবে তাকে? শুধুর এতটুক আশা আমার আদরের চিকিৎসরা জন্য হৃদয়বান ব্যক্তিরা এগিয়ে আসবেন।

মা নাসিমা বলেন, দেশবাসীর চাইলে আমার বড় ছেলের এমন করুন পরিণতি দেখতে হবে না। আদরকে সাহায্যের হাত চাইলে তিনি তার যোগাযোগের ঠিকানা দিয়েছেন। একাউন্ট নং, পূবালী ব্যাংক, গোড়ান শাখা- ২৯৭৪১০১১০০৩৪৪। আর আদরের পিতা-মাতার সাথে যোগাযোগের মোবাইল নং হচ্ছে – ০১৯৬৬৭৬২৪৩৯ এবং ০১৯৮৩৬০৬১১২ ।