ঢাকা, আজ বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০

উল্লাপাড়ায় ট্রেন লাইনচ্যুত ও অগ্নিসংযোগের সময় স্টেশন মাস্টারের ঘুমের যে ছবি ভাইরাল

প্রকাশ: ২০১৯-১২-১৪ ০০:১০:৪৬ || আপডেট: ২০১৯-১২-১৪ ০০:১১:১৮

রায়হান আলী উল্লাপাড়া (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় বৃহস্পতিবার (১৫ নভেম্বর) বেলা ২ টা বেজে ৩ মিনিটে ঢাকা ছেড়ে আসা লালমনিরহাটগামী রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেন উল্লাপাড়া স্টেশনের লেভেল ক্রসিংএ এসে লাইনচ্যুত হয়ে ট্রেনের ইঞ্জিনটি ছিঁচড়ে রেলপথের পাশে উল্টে পড়ে আগুন ধরে যায়।এসময় ওই আগুন লাইনচ্যুত আরো ৩টি বগিতে ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় ট্রেনের যাত্রীরা দ্রুত জানালার কাচ ভেঙ্গে এবং দরজা দিয়ে বেরিয়ে যায়। ওই সময় বেশ কয়েকজন যাত্রী আহত হন। উল্লাপাড়া লেভেল ক্রসিংয়ের ৫০ মিটার দূরে রেলপথ পরিবর্তনের স্থানে ট্রেনটি লাইনচ্যুত হয়। এঘটনায় ৪ টি পৃথক তদন্ত কমিটি করা হয়েছে।

 

 

 

 

 

স্থানীয়দের অভিযোগ স্টেশনমাস্টার রফিকুল আলমের দায়িত্ব অবহেলার কারণে ট্রেন দুর্ঘটনা হতে পারে। সবাই ধারণা করছে মিটারগেজের ট্রেন স্টেশন মাস্টারের সংকেত না পেয়ে ব্রডগেজে চলে যায় এসময় লাইনচ্যুত হওয়ার ঘটনা ঘটতে পারে।এই ভয়াবহ দূর্ঘটনার পর সেদিন বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১০ টায় স্টেশন মাস্টার রফিকুল আলমের ঘুমন্ত ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম (ফেজবুকে) ছড়িয়ে পরলে মূহুর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে যায় । এখানে দেখা যাচ্ছে উল্লাপাড়া স্টেশন মাস্টার রফিকুল আলম অফিসের টেবিলে কর্তব্যরত অবস্থায় ঘুমিয়ে রয়েছেন।ছবির পিছনে ছিলো ঘড়ি তখন ২ টা বেজে ৩ মিনিট ঠিক এই সময়টাতে রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেন লাইনচ্যুত হয়। সেই ভাইরাল হওয়া ছবিটা নিয়ে নানা মহলে স্টেশনমাস্টার রফিকুল আলমের দায়িত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। অনেকে মন্তব্য করেন স্টেশন মাস্টারের মতো দায়িত্বশীল পদের ব্যক্তি কর্তব্যরত অবস্থায় যদি এভাবে ঘুমিয়ে থাকে তাহলে এরচেয়ে বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে।

 

 

 

 

 

 

 

এখন অনেকের মনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে ভাইরাল হওয়া ছবিটা নিয়ে, ঘড়িতে যে সময় দেখা যাচ্ছে তা কি ট্রেন দুর্ঘটনার সময়কার? নাকি তারও অনেক আগে তোলা হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে সহকারী স্টেশন মাস্টার মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, যে ছবিটি ভাইরাল হয়েছে তা ট্রেন দুর্ঘটনার পরেরদিন শুক্রবার ভোরের দিকে তোলা হতে পারে।

 

 

 

 

 

 

 

 

সারারাত ডিউটি করার পর সকালে ঘুমিয়ে পরেছিলাম। ওই সময় হয়তো কেউ ছবিটি তুলেছে। তাছাড়া কর্তব্যরত অবস্থায় তার রুমে টেবিলের উপরে ঘুমিয়ে থাকা ভাইরাল হওয়া ছবি তারেই বলে স্বীকার করেছেন।ভাইরাল হওয়া ছবিতে দেখা যায় উল্লাপাড়া সহকারী স্টেশন মাস্টার মোঃ রফিকুল ইসলাম যখন ঘুমিয়ে ছিলেন সে সময় একই ছবির পিছনে ঘড়িতে বাজে ২টা বেজে ৩ মিনিট এবং ছবিটি ভাইরাল হয় বৃহস্পতিবার রাত ৯টা বেজে ৪৫মিনিটে। কিন্তু স্টেশন মাস্টার বলছে ছবিটি ট্রেন দুর্ঘটনার পরেরদিন শুক্রবার তোলা হতে পারে।

 

 

 

 

 

 

 

অথচ ছবিটি ভাইরাল হয়েছে বৃহস্পতিবার ,সে বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেননি।এখন প্রশ্ন উঠেছে ছবিটি কি ট্রেন দুর্ঘটনার সময় তোলা নাকি পরে তোলা বা তারও আগে তোলা। ছবিতে যে ঘড়িটির সময় দেখা যাচ্ছে তার আশেপাশে সময় কি ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটেছে কিনা জানতে চাইলে সে বিষয়ে তিনি কথা না বলে এরিয়ে যান।