নারী দিবসের ইতিকথা

adminadmin
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  01:27 PM, 15 April 2020

আন্তর্জাতিক নারী দিবস (আদি নাম আন্তর্জাতিক শ্রমজীবী নারী দিবস) প্রতি বছর ৮ মার্চ তারিখে পালিত হয়। সারা বিশ্বব্যাপী নারীরা একটি প্রধান উপলক্ষ্য হিসেবে এই দিবস উদযাপন করে থাকেন। বিশ্বের এক এক প্রান্তে নারীদিবস উদযাপনের প্রধান লক্ষ্য এক এক রকম। কোথাও নারীর প্রতি সাধারণ সম্মান ও শ্রদ্ধা উদযাপনের মুখ্য বিষয় হয়, আবার কোথাও মহিলাদের আর্থিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক প্রতিষ্ঠাটি বেশি গুরুত্ব পায়।

ইতিহাস:
এই দিবসটি উদযাপনের পেছনে রয়েছে নারী শ্রমিকের অধিকার আদায়ের সংগ্রামের ইতিহাস। ১৮৫৭ খ্রিস্টাব্দে মজুরি বৈষম্য, কর্মঘণ্টা নির্দিষ্ট করা, কাজের অমানবিক পরিবেশের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের রাস্তায় নেমেছিলেন সুতা কারখানার নারী শ্রমিকেরা। সেই মিছিলে চলে সরকারি লেঠেল বাহিনীর দমনপীড়ন।

১৯০৮ খ্রিস্টাব্দে নিউইয়র্কের সোশ্যাল ডেমোক্র্যাট নারী সংগঠনের পক্ষ থেকে আয়োজিত নারী সমাবেশে জার্মান সমাজতান্ত্রিক নেত্রী ক্লারা জেটকিনের নেতৃত্বে সর্ব প্রথম আন্তর্জাতিক নারী সম্মেলন হল। ক্লারা ছিলেন জার্মান রাজনীতিবিদ, জার্মান কমিউনিস্ট পার্টির স্থপতিদের এক জন।

এর পর ১৯১০ খ্রিস্টাব্দে ডেনমার্কের কোপেনহাগেনে অনুষ্ঠিত হয় দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক নারী সম্মেলন। ১৭টি দেশ থেকে ১০০ জন নারী প্রতিনিধি এতে যোগ দিয়েছিলেন। এ সম্মেলনে ক্লারা প্রতি বৎসর ৮ মার্চকে আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসেবে পালন করার প্রস্তাব দেন। সিদ্ধান্ত হয়, ১৯১১ খ্রিস্টাব্দ থেকে নারীদের সম অধিকার দিবস হিসেবে দিনটি পালিত হবে।

দিবসটি পালনে এগিয়ে আসে বিভিন্ন দেশের সমাজতন্ত্রীরা। ১৯১৪ খ্রিস্টাব্দ থেকে বেশ কয়েকটি দেশে ৮ মার্চ পালিত হতে লাগল। অতঃপর ১৯৭৫ খ্রিস্টাব্দে ৮ মার্চকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি প্রদান করা হয়। দিবসটি পালনের জন্য বিভিন্ন রাষ্ট্রকে আহ্বান জানায় রাষ্ট্রসংঘ। এর পর থেকে সারা পৃথিবী জুড়েই পালিত হচ্ছে দিনটি নারীর সমঅধিকার আদায়ের প্রত্যয় পুনর্ব্যক্ত করার লক্ষ্য নিয়ে।

বাংলাদেশে নারী দিবস:
বাংলাদেশে প্রথম নারী দিবস পালিত হয় ১৯৭১ সালের ৮ মার্চ। এরপর থেকে প্রতিবছরই নারীদের সম্মান জানিয়ে দিবসটি পালন করে আসছে বাঙালিরা।

বাঙালির নারী দিবসে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করতে হয় সেই সব কীর্তিমান নারীদের। তারা হলেন-

বেগম রোকেয়া :

পুরোনাম রোকেয়া সাখাওয়াৎ হোসেন; যিনি বেগম রোকেয়া হিসেবেই বেশি পরিচিত। বাঙালি নারী জাগরণ ও নারীর অধিকার আন্দোলনের অন্যতম পথিকৃৎ তিনি। তিনি ছিলেন ঊনবিংশ শতাব্দীর বিখ্যাত সাহিত্যিক, শিক্ষাব্রতী, সমাজসংস্কারক। বাংলার নারী জাগরণে এবং সমাজের সংস্কারে তার ভূমিকা অসামান্য।

বাঙালি মুসলমান সমাজের এই যে নারী-পুরুষের অসঙ্গতির বিরুদ্ধে প্রথম যে কণ্ঠটি আওয়াজ তুলেছিল, সেটি বেগম রোকেয়ার। তিনি বাঙালি মুসলমানদের নব জাগরণের সূচনা লগ্নে নারী শিক্ষা ও নারী জাগরণে নেতৃত্ব দেন।

বেগম রোকেয়ার বিশেষ গ্রন্থ পদ্মরাগ, অবরোধবাসিনী ও মতিচুর। তার উল্লেখযোগ্য রচনা সুলতানার স্বপ্ন। মৃত্যুর আগে বেগম রোকেয়া একটি অসমাপ্ত প্রবন্ধ রেখে যান। এর নাম ‘নারীর অধিকার’।

বেগম রোকেয়া তার লেখনিতে নারীবৈষম্য প্রতিরোধে সোচ্চার হয়েছেন। সামাজিক সচেতনতা ও নারী-পুরুষ সমানাধিকার বিষয়ে হয়েছেন স্পষ্টবাদী।

বেশ কয়েকটি স্কুল পরিচালনা ও সাহিত্যচর্চার পাশাপাশি জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত বেগম রোকেয়া নিজেকে সাংগঠনিক ও সামাজিক কর্মকাণ্ডে ব্যস্ত রাখেন। ১৯১৬ সালে তিনি মুসলিম বাঙালি নারীদের সংগঠন ‘আঞ্জুমানে খাওয়াতিনে ইসলাম’ প্রতিষ্ঠা করেন।

৯ ডিসেম্বর এই সাহিত্যিক, শিক্ষানুরাগী, সমাজ-সংস্কারকের জন্ম ও মৃত্যুবার্ষিকী। ১৮৮০ সালের ৯ ডিসেম্বর রংপুর জেলার মিঠাপুকুর থানার পায়রাবন্দ গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম জমিদার পরিবারে জন্ম নেন তিনি। মাত্র বায়ান্ন বছর বয়সে নারী জাগরণের অগ্রদূত মহিয়সী নারী ১৯৩২ সালের ৯ ডিসেম্বর কলকাতায় মৃত্যুবরণ করেন।

জাহানারা ইমাম :

বাঙালি জাতির যেকোনো ক্রান্তিলগ্নে আলোর মশাল হাতে পথ দেখিয়েছেন জাহানারা ইমাম। তার হাতে গড়া গণআদালতের মাধ্যমেই বাংলাদেশে শুরু হয় একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রক্রিয়া।

শহীদ জননী জাহানারা ইমাম একাধারে কথাসাহিত্যিক ও বাংলাদেশের একজন শিক্ষাবিদ ছিলেন। একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটিরও সংগঠকও ছিলেন তিনি। বর্তমান পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদে জন্ম নেন জাহানারা ইমাম।

তার শৈশবে মুসলিম পরিবারের মেয়েদের কাছে আধুনিক শিক্ষালাভের দ্বার উন্মুক্ত ছিল না। তবে তিনি তার ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট বাবার আবদুল আলীর তত্ত্বাবধানে রক্ষণশীলতার বাইরে এসে আধুনিক শিক্ষা লাভ করেছিলেন। বিবাহিত জীবনে লেখাপড়ায় তিনি পুরকৌশলী স্বামী শরীফ ইমামের দিক থেকেও উৎসাহ ও আনুকূল্য পেয়েছিলেন। নারীর কল্যাণে বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন তিনি।

একাত্তরে তার ছেলে শাফী ইমাম রুমী দেশের মুক্তিসংগ্রামে অংশ নেন; কয়েকটি সফল গেরিলা অপারেশনে অংশ নেন তিনি। যুদ্ধচলাকালে শহীদ হন। পরবর্তীতে স্বাধীনদেশে তাকে ‘শহীদ জননী’ উপাধি দেয়া হয়।

জাহানারা ইমামের বিখ্যাত গ্রন্থ ‘একাত্তরের দিনগুলি’। ১৯৮১ সালে তিনি মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হন; রোগ উত্তরোত্তর বাড়তে থাকে, কথা বলাও দুঃসাধ্য হয়ে পড়ে। কিন্তু কর্কট রোগ তার কর্মস্পৃহা ও আদর্শকে বিন্দুমাত্র স্তিমিত করতে পারেনি। সকল ব্যথা-বেদনা উপেক্ষা করে তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন ও একাত্তরের ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটির কর্মকাণ্ড সমান উৎসাহে চালিয়ে যেতে থাকেন।

১৯৯৪ সালের ২৬ জুন আমেরিকার মিশিগান স্টেটের ডেট্রয়েটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার জীবনাবসান ঘটে। সেখান থেকে ঢাকায় এনে তাকে সমাহিত করা হয়।

বেগম রোকেয়া, জাহানারা ইমাম, বীরকন্যা প্রীতিলতা
বীরকন্যা প্রীতিলতা :

ব্রিটিশ বিরোধী বিপ্লবী প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার বাঙালি নারীর সাহসের বাতিঘর। অগ্নিযুগের বীরকন্যা প্রীতিলতা যুগে যুগে বাংলার নারীদের জন্য অনুপ্রেরণা হয়ে রয়েছেন, ভবিষ্যতেও থাকবেন।

প্রীতিলতা আমাদের উজ্জীবিত করে সেই সময়ে সমাজের শত বাধা ও রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে দেশমাতৃকার জন্য স্বাধীনতা সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েন। বীরকন্যা প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার নারী আন্দোলনের পুরোধা ছিলেন।

তৎকালীন পূর্ব-বঙ্গে জন্ম নেয়া এই বাঙালি বিপ্লবী সূর্য সেনের নেতৃত্বে তখনকার ব্রিটিশ বিরোধী সশস্ত্র আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশ নেন এবং জীবন বিসর্জন দেন।

চট্টগ্রামের ১৯৩২ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর রাতে কয়েকজন বিপ্লবীকে সঙ্গে নিয়ে প্রীতিলতা চট্টগ্রামের পাহাড়তলী ইউরোপিয়ান ক্লাবে ইংরেজদের ওপর আক্রমণ করেন। এই ক্লাবের সামনে লাগানো সাইনবোর্ডে লেখা থাকতো- ‘কুকুর ও ভারতীয়দের প্রবেশ নিষেধ’।

অভিযান শেষে ফেরার সময় তার গায়ে একটি গুলি লাগে। এরপর ইংরেজদের হাতে ধরা পড়ার আগে তিনি নিজের পকেটে থাকা পটাশিয়াম সায়ানাইড পান করে আত্মাহুতি দেন।

১৯১১ সালের ৫ মে চট্টগ্রামের বর্তমান পটিয়া উপজেলার ধলঘাট গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন ইডেন মহিলা কলেজ ও কলকাতার বেথুন কলেজের এই ছাত্রী।

এছাড়া আরও অনেক মহীয়সী বাঙালি নারীর উন্নয়নে এবং সমাজের কুসংস্কার ও পশ্চাতপদতা দূরীকরণে ভূমিকা রেখেছেন। তাদের কল্যাণ আর সাহসেই বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়ন হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :