‘আল্লাহর নবি যেন কেয়ামতের ক’ঠিন সময়ে আমাকে হাউজে কাওছার থেকে পানি পান করান’

banglarjay1banglarjay1
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  03:39 PM, 13 June 2020

ইসলাম ডেস্ক : মদিনার মসজিদে নববি কিংবা মক্কার মসজিদে হারাম, ওমরাহ ও জেয়ারতকারীদের চা-কফি-গাওয়াসহ খেজুর বিতরণ করেন অনেকেই। আল্লাহর মেহমানদের খেদমতে বিনামূল্যেই এসব বিতরণ করে থাকেন ধর্ম প্রিয় মুমিন মুসলমান। তাদেরই একজন null

null

nullহাজি ইসমাঈল। ৮০ বছরের এ প্রবীণ ব্যক্তি দীর্ঘ ৩০ বছর যাবত মদিনার মসজিদ নববিতে আগতদের চা-কফি বিতরণ করে চলেছেন। হাজি ইসমাঈলের আশা- ‘হাউজে কাওছারের পানি পান করারnull

null

null আশায় মসজিদে নববির মেহমানদের আমি চা পান করাই’বিগত ত্রিশ বছর যাবত তিনি চা, কফি বিতরণ করে যাচ্ছেন। জায়গাটা মসজিদে নববীর কাছেই। হাজী ইসমাঈলের বর্ণনা অনুযায়ী রাসুলুল্লাহ null

null

nullসাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রতি ভালবাসা থেকেই তিনি ত্রিশ বছর যাবত মসজিদে নববিতে আগত মুসল্লিদের তিনি চা, কফি পান করান। রমজানে ইফতারেরও আয়োজন করেন তিনি।null

null

null

মদিনার মসজিদে নববিতে যাদের ঘনঘন যাতায়াত রয়েছে। যারা মসজিদে নববীর পড়শি, হাজি ইসমাঈলের সঙ্গে রয়েছে তাদের অন্তরের ঘনিষ্টতা। প্রতিদিন বিকালে তার চা বিতরণের স্থানের পাশে সিরিয়ান আলেমদের সময় কাটাতে দেখা যায়। মদিনার পরিচিত আলেমদের null

null

nullসঙ্গেও রয়েছে হাজি ইসমাঈলের বিশেষ সুসম্পর্ক।চা, কফি বিতরণ প্রসঙ্গে হাজি ইসমাঈলের প্রত্যাশা- ‘আল্লাহর নবি যেন কেয়ামতের ক’ঠিন সময়ে আমাকে হাউজে কাওছার থেকে পানি পান করান সেজন্য মদিনার মসজিদে নববির মেহমানদের জন্য আমি চা-কফি আপ্যায়ন করি।null

null

null

আপনার মতামত লিখুন :