জাতীয় পরিচয় পত্র না থাকায় জোটে না সরকারি ত্রাণ

banglarjay1banglarjay1
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  02:07 PM, 14 June 2020

৫৫ বছর বয়সেও জোটেনি জায়েদা বেগম নামে স্বামী পরিত্যাক্তা এক নারীর জাতীয় পরিচয়পত্র। ফলে ভোটাধিকার প্রয়োগের পাশাপাশি সরকারিnull

null

null সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন এই অসহায় নারী। জায়েদা বেগম বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার মাঝিড়া ইউনিয়নের মাঝিড়া দক্ষিণপাড়ার মৃত কালাম উদ্দিন ওরফে কালাদ্দিনের মেয়ে।
null

null

null
স্থানীয়রা জানান, জায়েদা বেগমের আপন বলতে কেউ নাই। ছোট বেলায় মা, বাবা, ভাইবোনকে হারিয়েছেন। অল্প বয়সে বিয়ে হওয়ার পর পরই কোলের শিশু মারা যাওয়ার পর স্বামীও তাকে ছেড়ে চলে যায়। মানুষের বাড়ি বাড়ি শাক, কচু বিক্রি করে যা পায় তাই দিয়ে কোন রকমে null

null

nullদুমুঠো খাবার জোটে। অন্যের জমিতে ঝোপ-ঝাড়ের ভিতর প্লাস্টিক বস্তা দিয়ে ঝুঁপড়ি ঘর বানিয়ে সেখানেই বসবাস করেন। বেশির ভাগ সময় বাহিরে ঘুরে বেড়ায়। এক কথায় ছন্নছাড়া জীবন তার।

অসচেতনতা এবং দায়িত্বশীল মানুষের অবহেলার কারণেই আজ পর্যন্ত তার জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি হয়নি। ফলে ভোটাধিকার প্রয়োগের null

null

nullপাশাপাশি সরকারি সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন তিনি।

জায়েদা বেগম জানান, কেউ কোন দিন তার খোঁজ-খবর নেয়নি। জাতীয় পরিচয়পত্র কি তা তিনি জানেন না। সরকারি সুযোগ-সুবিধার জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের বহুবার বলেছেন। কিন্তু কোন কাজ হয়নি।
null

null

null
স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল হামিদ লয়া জানান, জায়েদা বেগম কখন কোথায় থাকেন তার কোন ঠিক ঠিকানা নেই। হালনাগাদ ভোটার তালিকা তৈরির সময় তাকে পাওয়া যায়নি। তাছাড়া তারও কোন আগ্রহ নাই। এ কারণেই আজ পর্যন্ত তার জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করা সম্ভব হয়নি। null

null

nullজাতীয় পরিচয়পত্র না থাকায় সরকারি সুযোগ-সুবিধা দিতে না পারলেও করোনাকালীন সময়ে তাকে ত্রাণ দেওয়া হয়েছে।

মাঝিড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম জানান, জায়েদা বেগমের জাতীয় পরিচয়পত্র নাই এটা তার জানা ছিল না। আগামীতে সুযোগ বুঝে তাকে হালনাগাদ ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে।null

null

null

আপনার মতামত লিখুন :