জামাই-শাশুড়িকে পরকীয়ার অপবাদ থেকে বাঁচালেন ইউএনও

banglarjay1banglarjay1
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  04:04 AM, 16 June 2020

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলায় জামাইয়ের সঙ্গে শাশুড়ির পরকীয়ার অভিযোগ তুলে গ্রাম্য সালিসে একটি পরিবারকে এক ঘরে করে রাখা হয়। বিষয়টির খরব পেয়ে গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তমাল হোসেন ভুক্তভোগী পরিবারটির পাশে দাঁড়ান।null

null

null

তবে সালিসে থাকা মাতবব্বরা এক ঘরে করার ফতোয়ার বিষয়টি অস্বীকার করায় তাদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি বলে জানান ইউএনও। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলায় নাজিরপুর ইউনিয়নের দেবোত্তর গরিলা গ্রামে।
null

null

null
এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী পরিবারটি জানায়, সম্প্রতি এক এলাকাবাসীর কাছ থেকে ১ লাখ টাকা ধার করে ভুক্তভোগী ওই নারী তার জামাইকে দেন। গত ৬ জুন সন্ধ্যার পর পাওনাদারকে ধারের টাকা পরিশোধ করে জামাই-শাশুড়ি বাড়ি ফিরছিলেন। পথে কতিপয় যুবক তাদের পরকীয়ারnull

null

null অপবাদ দিয়ে আটকে রাখে। গ্রাম প্রধানরা তাদের ছাড়িয়ে দিয়ে ১৩ জুন গ্রাম্য সালিশ ডাকে। ১৩ জুন গ্রাম্য সালিশে গ্রাম প্রধানরাসহ প্রায় ৭০ জন উপস্থিত ছিলেন। আর সালিশে রানীনগর মোল্লাপাড়া মসজিদের ইমাম মাওলানা নুরুজ্জামান তাদের এক ঘরে করার ফতোয়া দেন। পাশাপাশি ভুক্তভোগী ওই নারীর মেয়ের সাথে জামাইয়ের ঘর সংসার না করার null

null

nullনির্দেশ দেন মাওলানা নুরুজ্জামান।

এরপর গত ২ দিন ধরে পরিবারটি এক ঘরে হয়ে ছিল। পাশাপাশি তার মেয়ে ১৫ ও ২ বছরের দুই ছেলে নিয়ে মায়ের বাড়িতে অবস্থান করছিলেন।

এই ঘটনার খবর পেয়ে সোমবার দুপুর ২টার দিকে গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তমাল হোসেন এলাকায় যান। ঘটনাস্থলে গিয়ে তিনি null

null

nullভুক্তভোগীর মেয়েকে তার স্বামীর বাড়িতে পাঠান। পাশাপাশি গ্রামবাসীকে দেশের প্রচলিত আইন বিরোধী কাজ না করার নির্দেশ দেন।

এ ব্যাপারে গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তমাল হোসেন জানান, ভুক্তভোগী ওই নারীর মেয়ের বিয়ে হয় ২০ বছর আগে। এছাড়া null

null

nullভুক্তভোগী নারীর বয়স ৫০ বছরের ওপরে। প্রাথমিক ভাবে ঘটনাটি সাজানো মনে হয়েছে।

গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী বলেন, মাওলানা নুরুজ্জামান তার দেয়া নির্দেশনার বিষয়টি অস্বীকার করায় কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা সম্ভব হয়নি।null

null

null তবে ভুক্তভোগী ওই নারী লিখিত অভিযোগ করলে থানায় মামলা করা হবে। দেশের প্রচলিত আইনে তাদের বিচার হবে।

আপনার মতামত লিখুন :